নস্টালজিয়া

বদলে গিয়েছে পটলডাঙা স্ট্রিট, তবু আজও স্মৃতিতে উজ্জ্বল ‘চার মূর্তি’!

মৈনাক পর্বতের মতো নাক, ৩৬ ইঞ্চি বুকের ছাতি এবং গড়ের মাঠে গোরা পিটিয়ে চ‍্যাম্পিয়ন। মানুষটিকে চিনে নিতে সাহিত‍্যপ্রিয় বাঙালির কাছে...

Read more

ব্যোমকেশ-সত্যবতীর ঠিকানা লেখা কলকাতার সেই রাস্তা আজও একই রকম!

তিনশো বছরের শহর কলকাতা। সুতরাং এর গহ্বরে রয়েছে নানান সাদা-কালো গল্প। যা আধুনিক কলকাতার রাস্তায় দাঁড়িয়ে আজও রঙিন মনে হয়।...

Read more

পোস্ট অফিস ক্যান্টিন! যেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের এক পুরনো চিঠি

বাঙালির গর্বে এবং তর্কে বহুকাল ধরেই বেশ পাকাপাকি ভাবে রাজত্ব করছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়। এখন এই বিশ্ববিদ্যালয়ের জগৎজোড়া খ্যাতি, প্রতিবাদী কর্মকান্ড...

Read more

ইস্কুল বেলার সেই প্রেয়ার লাইনের গান, কেলোর কীর্তি বনাম নস্টালজিয়া!

প্রেয়ারলাইনের গান নিয়ে প্রথম জোকটা শুনেছিলাম বাবার মুখে। ওরিয়েন্টাল সেমিনারিতে জোর করে ভর্তি করা রবীন্দ্রনাথ নাকি ঘাড় নেড়ে গাইতে শিখেছিলেন...

Read more

শৈশবে লোডশেডিংয়ের দিনে নস্টালজিয়া ছিল সেই তালপাতার হাত পাখারা!

"সাপ লুডো, চিত্রহার, লোডশেডিং, শুকতারা পাঁচসিকে, দুঃখদের গল্প বল, বন্ধু চল"। যাদের ছোটবেলাটা শুকতারা পড়ে কেটেছে তাদের কাছে লোডশেডিং শৈশবের...

Read more

স্বাধীনতার কত না জানা ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে আজও দাঁড়িয়ে ‘স্বাধীন ভারত হিন্দু হোটেল’!

৮/২ ভবানী দত্ত লেন, প্রেসিডেন্সির পিছন দিকটায়- ঠিকানাটা আজ অল্প বিস্তর সবারই জানা। তবে এই ঠিকানা নবীন প্রজন্মের কাছে একটা...

Read more

চিঠির প্রেম মিশেছিল ক্রিং ক্রিং শব্দে, অদ্ভুত নস্টালজিয়ায় জড়ানো আমাদের ছোটবেলার দোসর সে!

ক্রিং ক্রিং ক্রিং... টেলিফোনটা বাজতেই একছুটে গিয়ে ভিড় করতাম তার সামনে। "কে জানে কে আবার ফোন করল! বড়পিসি নয় তো?...

Read more

বেলাকে চেয়ে রোজ হাজারও মানুষ ডায়াল করতেন ২৪৪১১৩৯! নম্বরটি আসলে ছিল কার?

'হ্যালো এটা কি ২৪৪১১৩৯ বেলা বোস তুমি পারছো কি শুনতে' ১৯৯৪ থেকে ২০২০ বেলা বোসের কদর এক বিন্দুও কমেনি। সকালবেলা...

Read more

জড়িয়ে রেখেছে ছেলেবেলার একমুঠো স্মৃতির নস্টালজিয়ায়, তবু মিষ্টি হিসাবে এখনও পাত্তা পায় না সে!

গুজিয়া! নামটা শুনলেই একরাশ ছেলেবেলার স্মৃতি জাপটে ধরে আমাদের। রঙটা সাদা হলেও আমাদের ছোটবেলার নানা রঙিন স্মৃতির সাক্ষী সে। ছোটবেলায়...

Read more

রেনকোটে বাঙালির নস্টালজিয়া! ব্রিটিশদের চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে বাঙালির গড়া ‘ড্যাকব্যাক’ পা দিল শতবর্ষে!

আবহাওয়ার হিসেবে এখন সারা বছরই বর্ষা। বছর ভর টিপটিপ বা ঘন ঘোর ঝমঝম! সোজা কথায় বৃষ্টির আনাগোনা প্রায় বারো মাসই।...

Read more
Page 1 of 2 1 2